ভিপিএন কি? ভিপিএন কিভাবে কাজ করে? (VPN)

ইন্টারনেট যারা ব্যাবহার করেন তারা কমবেশী VPN / ভিপিএন শব্দটা শুনেছেন।
তবে অনেকে হয়তো প্রথমবার VPN শব্দটা শুনে থ হয়ে দাড়িয়ে গিয়েছিলো কারন এই অদ্ভুদ নামের জিনিসটা আসলে কি?

তাদের মনে যে চিন্তাটা আসে তা হচ্ছে, VPN/ভিপিএন জিনিসটা কি? / কি এই ভিপিএন? এটা দিয়ে কি করা হয়? এমন অদ্ভুত নাম কেন?! ইত্যাদি ইত্যাদি...
ভিপিএন কি? ভিপিএন কিভাবে কাজ করে?
ভিপিএন কি?

ভিপিএন কি?

বেশীরভাগ বাঙ্গালীই মনে করেন ফ্রি নেট চালানোর জন্য যে এপ ব্যাবহার করে তা হচ্ছে VPN! কথাটা "হাইস্যকর" প্রচুর "হাইস্যকর"। কারন VPN মোটেও এ কাজের জন্য তৈরি করা হয়নি বা ব্যাবহার হয়না। এমন অদ্ভুদ ধারনা বা চিন্তার কারন আমাদের বিশেষ করে বাঙ্গালীর প্রযুক্তির ব্যাপারে অজ্ঞতার কারন।
তো আসুন আজ আপনাদের এই VPN সম্পর্কে কিছুটা ধারোনা দিই। :-)

VPN/ ভিপিএন কি?
VPN বা ভিপিএন শব্দটা মাত্র ৩ টি শব্দের সংমিশ্রণে তৈরি এবং এর একটি পূর্ণাঙ্গ রুপ আছে।

V= Virtual
P= Private
N= Network

অর্থাৎVPN এর মানে হচ্ছে Virtual Private Network.
সহজে যদি বলি তবে VPN হচ্ছে এমন একটা ব্যাবস্থা যার মাধ্যমে আপনি সম্পূর্ণ ইন্টারনেট জগৎএ নিজের সম্পূর্ন পরিচয় আড়াল করে চলতে পারবেন। যেমন ধরুন গোয়েন্দারা বিভিন্ন ধরনের চরিত্রে মানুষের মধ্যে ঘুরে তেমনি VPN ব্যাবহার করে আপনি এমন ভিন্ন পরিচয়ে ইন্টারনেটে ঘুরতে পারবেন।
আরেকটু বুঝিয়ে বলি, ধরেন আপনি আপনার পাশের বাসার কোন এক সুন্দরী রমনীর সাথে দেখা করার জন্য তার বাসায় যেতে চান। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে আপনি নিজে কোনভাবেই নিজের নাম পরিচয় বা নিজের পোশাক পরে তার বাসায় যেতে পারবেননা কারন ঐ বাসার দারোয়ান আপনাকে চিনে ফেলবে।
তখন আপনি একটু বুদ্ধি খাটিয়ে একটা বোরকা পরে মেয়ে সেজে ঐ বাসায় কোন বাধা ছাড়াই চলে গেলেন।

এখন উপরের উদাহরনটিতে বোরকাই হচ্ছে VPN কারন এটা আপনার নিজের পরিচয় লুকিয়ে রেখে আপনার কাজে সহায়তা করেছে।
এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে, ইন্টারনেটে এটা আপনার পরিচয় কিভাবে লুকাবে?
তাহলে মন দিয়ে নিচের লেখা পড়ুন।

VPN/ ভিপিএনের কাজ কি?

এতক্ষনতো বুঝলেন VPN কি জিনিস। এবার বলবো এটা দিয়ে কি করে এবং এর কাজ কি?
ইন্টারনেটে চলাফেরার জন্য প্রতিটা মানুষেরই নিজস্ব পরিচয় থাকে যেটাকে বলা হয় IP (আইপি)। প্রতিটা মানুষের জন্য আলাদা আলাদা আইপি থাকে যেটা আপনার ব্যাবহৃত কম্পিউটার বা মোবাইলে সেট করা থাকে। এখন আপনি কোথায় কি করবেন এ মুহূর্তে কোথায় আছেন সব আপনার ঐ IP Address এর মাধ্যমে জানা যাবে।
এখন যদি আপনি VPN ব্যাবহার করে ইন্টারনেটে ঘুরঘুর করেন তবে আপনার ঐ IP অটোমেটিক চেন্জ হয়ে যাবে। ধরেন আপনার IP ছিলো 123, VPN ব্যাবহার করলে সেটা হয়ে যাবে 456! যার ফলে ইন্টারনেট জগৎএ কেউ আপনাকে ট্রাক করতে পারবে না আপনি নিজের পরিচয় গোপন রেখে আরামে কাজ করতে পারবেন।

সুতরাং মূল কথা হহলো VPN দিয়ে অাপনি অাপনার অাইপি চেন্জ করে অন্য একটা আইপি দিয়ে ইন্টারনেটে দিব্যি ঘুরতে পারবেন। যারফলে কেউ কোনভাবেই আপনার প্রকৃত পরিচয় বা প্রকৃত তথ্য পাবেনা।
ভিপিএন ব্যাবহারের ফলে ডাটা encrypt করে ফেলে
ভিপিএন encrypt প্রসেস

এছাড়াও যে সকল ওয়েবসাইটে আপনার প্রবেশে বাধা সেগুলি VPN ব্যাবহার করে সহজেই ঘুরে আসতে পারবেন!
যেমন ধরুন সরকার বাংলাদেশ থেকে Facebook ব্যাবহার বন্ধ করে দিলো। তার মানে বাংলাদেশীরা আর তাদের IP দিয়ে ফেসবুকে ঢুকতে পারবেনা। তখন আপনি চাইলে VPN ব্যাবহার করে খুব সহজেই ফেসবুক চালাতে পারবেন সবকার আপনার কিছুই করতে পারবে না।

এইযে সারাদিন অনলাইনে "হ্যাকার"দের গল্প শুনেন যারাকিনা সাইবার জগৎ এর নেতা তারাও সবাই নিজেদের আড়াল করার জন্য VPN ব্যাবহার করে!

VPN কেমন?

অনেককিছুইতো শুনলেন VPN সম্পর্কে, এখন কথা হচ্ছে এই VPN জিনিসটা দেখতে আসলে কেমন?

এটা মূলত একটা সফটওয়ার বা অ্যাপ্লিকেশন যা আপনি মোবাইল বা কম্পিউটারে ব্যাবহার করতে পারবেন। সফটওয়ারটির মাধ্যমে আপনি বাংলাদেশে বসে পৃথিবীর অন্য যেকোন দেশের আইপি ব্যাবহার করে ইন্টারনেট মামাকে বোকা বানাতে পারবেন!
অর্থাৎ পুরো ইন্টারনেট জগৎ জানবে আপনি বাংলাদেশ নয় অন্য দেশ থেকে নেট চালাচ্ছেনন আসলে কিন্তু আপনি বাংলাদেশে! কি অদ্ভুত ব্যাপার তাইনা?

VPN দিয়ে কি কি কাজ করা হয়?

১। VPN ব্যবহারের ফলে আপনার অবস্থান কেউ ট্র্যাক করতে পারবে না।

২। IP address (Internet Protocol address) হাইড করে রাখে যার ফলে নিজের পরিচয় লুকিয়ে রাখতে পারবেন।

৩। VPN ব্যবহার করার ফলে আপনি নিরাপদে তথ্য আদান প্রদান করতে পারবেন।

৪। অনেকসময় VPN ব্যাবহারের ফলে আপনার ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী আইপিএস থেকে নেটের ফুল স্পিড পাবেন। (অধিকাংশ সময় নয়)

৫। VPN নিরাপদ যোগাযোগ এবং ডাটা encrypt করার সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি। মানে VPN আপনাকে একটি ভার্চুয়াল নেটওয়ার্কের সঙ্গে সংযুক্ত করতে পারে এবং আপনার পাঠানো সব data দ্রুততার সঙ্গে encrypt করে ফেলে অর্থাৎ public domain থেকে লুকিয়ে রাখে এবং এটা আপনার browsing history-র কোনো ট্র্যাক রাখে না যার ফলে আপনি অনলাইনে পুরোপুরি নিরাপদ।

VPN কিনতে হয় নাকি ফ্রি?

VPN ফ্রি এবং পেইড দুভাবেই পাওয়া যায়। ফ্রি VPN এ কিছু সীমাবদ্ধতা থাকে যেটা পেইড ভিপিএনে থাকেনা। এছাড়াও ফ্রি VPN এ IP জনিত সমস্যা থাকে যার কারনে সব মিলিয়ে ফ্রি ভিপিএন এর চাইতে পেইড ভিপিএন ভালো।

তো এই ছিলো VPN নিয়ে আমার কথা। আশাকরি পোষ্টটি আপনার কিছুটা হলেও উপকারে আসবে। কষ্টকরে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

তথ্যসূত্র:
  • https://en.m.wikipedia.org/wiki/Virtual_private_netw
  • https://roar.media/bangla/tech/what-is-vpn-and-why
  • https://www.androidauthority.com/what-is-a-vpn-gary-explains-695574/

Comments